যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচন কী

যুক্তরাষ্ট্রে কংগ্রেসের মধ্যবর্তী নির্বাচন আজ মঙ্গলবার। ভোটের জন্য প্রস্তুত পুরো দেশ। শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মূলত দুই বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সম্পর্কে নিজেদের মনোভাব জানাতে আজ ভোট দেবেন দেশটির জনগণ।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের চার বছর মেয়াদের মাঝামাঝি সময়ে যেহেতু এই নির্বাচন হয়, তাই একে মধ্যবর্তী নির্বাচন বলা হয়। ক্ষমতা ধরে রাখার পাশাপাশি প্রেসিডেন্টের জনপ্রিয়তা যাচাইয়েরও অন্যতম মাধ্যম এটি। তবে কেবল কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেট এবং নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যদের নির্বাচিত করার ভোটই হয় না। কালকের নির্বাচনে গভর্নর এবং অ্যাটর্নি জেনারেল পদেও ভোট হবে। যুক্তরাষ্ট্রে সিনেটের সদস্য সংখ্যা ১০০। এর মধ্যে ৩৫টির ভোট হবে কাল। আর প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫ আসনের সবকয়টিতেই ভোটাভুটি হবে। ৫০ রাজ্যের মধ্যে ৩৬টিতে গভর্নর পদে ভোট হবে। আর ১৯ জন নতুন অ্যাটর্নি জেনারেল নির্বাচিত হবেন।

বর্তমানে সিনেটের ১০০ আসনের মধ্যে ৫০টি ডেমোক্র্যাটদের এবং ৫০টি রিপাবলিকানদের। তবে ভাইস প্রেসিডেন্টের ভোটটি ডেমোক্র্যাটরা পাওয়ায় বিল পাশ হয়ে যায়। প্রতিনিধি পরিষদের ৪৩৫ আসনের মধ্যে ২২০টির নিয়ন্ত্রণ ডেমোক্র্যাটদের হাতে এবং ২১২টি নিয়ন্ত্রণ করছেন রিপাবলিকানরা। সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যে কোনো দলকে ৫১ টি আসনে জয় পেতে হবে। রিপাবলিকানরা ২০টি আসনে এবং ডেমোক্র্যাটরা ১২টি আসনে এগিয়ে। জয়-পরাজয় নির্ধারণ করবে তিনটি আসন। প্রতিনিধি পরিষদে ২১৮টি আসনে জয় পেলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া যায়। বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে, ২১৬ টি আসনে রিপাবলিকানরা এগিয়ে আছেন। আর ১৯৯টি আসনে এগিয়ে আছেন ডেমোক্র্যাটরা। জয়-পরাজয় নির্ধারণ করবে ২০টি আসন।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *